শিরোনামঃ

» আদালতে যাওয়ার হুমকি ট্রাম্পের,ধৈর্য ধরার আহ্বান বাইডেন

প্রকাশিত: ০৪. নভেম্বর. ২০২০ | বুধবার

যে অঙ্গরাজ্যগুলোর ফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে: সেগুলো হলো পেনসিলভানিয়া, নেভাদা
অ্যারিজোনা, আলাস্কা, উইসকনসিন, মিশিগান, জর্জিয়া ও নর্থ ক্যারোলাইনা

ভোট গণনা শেষ হওয়ার আগেই নিজের জয় দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। ভোট গণনার বিষয়ে অভিযোগ জানাতে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

অন্যদিকে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন তাঁর সমর্থকদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘ট্রাম্প বা আমি নিজেকে জয়ী ঘোষণার কেউ নই। এটা আমেরিকার জনগণের সিদ্ধান্ত।’

মার্কিন গণমাধ্যমগুলো ভোট গণনা নিয়ে ট্রাম্পের তোলা অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উল্লেখ করেছে।

সিএনএনের সর্বশেষ তথ্য বলছে, জো বাইডেন ২২৪ ইলেকটোরাল ভোট পেয়েছেন। বিপরীতে ট্রাম্প পেয়েছেন ২১৩ ভোট। মোট ৫৩৮ ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে প্রয়োজন ২৭০ ভোট।

নিউইয়র্ক টাইমসের তথ্য অনুযায়ী এখনো আটটি অঙ্গরাজ্যের ফল বাকি রয়েছে। এগুলোতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছে দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর।

এর মধ্যে পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের ফল পেতে শুক্রবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা। এই অঙ্গরাজ্যে ২০ টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট রয়েছে।

৭৫ শতাংশ ভোট গণনা পর্যন্ত এখানে প্রায় ছয় লাখ ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে আছেন ট্রাম্প।

অন্য যে অঙ্গরাজ্যগুলোর ফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে, সেগুলো হলো নেভাদা, অ্যারিজোনা, আলাস্কা, উইসকনসিন, মিশিগান, জর্জিয়া ও নর্থ ক্যারোলাইনা।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, ভোট গণনা চলার মধ্যেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজের জয় দাবি করেছেন। হোয়াইট হাউসের ইস্ট রুম থেকে দেওয়া এক ভাষণে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা এই নির্বাচনে জয়ী হয়েছি। এটা (ভোট গণনা) মার্কিন জনগণের সঙ্গে প্রতারণা।’ তিনি ভোট গণনার অভিযোগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ারও ঘোষণা দেন।

এ বক্তব্যের মাধ্যমে দৃশ্যত ট্রাম্প এটাই বোঝাতে চেয়েছেন, তিনি ডাকযোগে গ্রহণ করা ব্যালটের গণনা বন্ধ করতে চান।

নিউইয়র্ক টাইমসের খবরে বলা হয়, ট্রাম্পের এমন দাবির প্রতিক্রিয়ায় বাইডেন বলেছেন, ‘এই নির্বাচনে কে জিতেছেন— আমি বা ট্রাম্প তা ঘোষণা দেওয়ার কেউ নই। এটি মার্কিন জনগণের সিদ্ধান্তের বিষয়।’ তিনি তাঁর সমর্থকদের শান্ত থাকারও আহ্বান জানান।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, ভোটের ফলাফল ঘোষণার আগে হোয়াইট হাউস থেকে এভাবে নিজেকে জয়ী ঘোষণা করাটা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার জন্য বেপরোয়া হামলার শামিল। আর তা-ও এমন এক সময় করা হলো যখন পুরো দেশ করোনাসহ বিভিন্ন বিষয়ে গভীর উদ্বেগ ও বিভক্তির মধ্য দিয়ে সময় পার করছে।

ট্রাম্পের এমন আদালতে যাওয়ার হুমকির জবাবে বাইডেনের নির্বাচনী শিবির বলেছে, আইনি লড়াই মোকাবিলায় তাঁদের আইনজীবীরাও তৈরি রয়েছেন।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, এই মুহূর্তে যে পরিস্থিতি তাতে এখনো লাখ লাখ ভোট গণনা বাকি রয়েছে। এই গণনা শেষ করতে কয়েক দিন লেগে যেতে পারে।

ভোট গণনা সম্পন্ন হলে তিনিই জিতবেন—বাইডেনের এ আশাবাদ প্রকাশ করার কিছু পরই হোয়াইট হাউসে দেওয়া ভাষণে ট্রাম্প এই নির্বাচনে নিজে জয়ী হওয়ার ওই ঘোষণা দেন।

ভোট গ্রহণ শেষ হলেও যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, অঙ্গরাজ্যগুলোর সব ভোট গণনা সম্পন্ন করা প্রয়োজন। আর বৈধ ব্যালটের গণনা শেষ করতে অনেক অঙ্গরাজ্যেই নিয়মিতভাবে কয়েক দিন লেগে যেতে দেখা যায়। আর এ বছর ভোট প্রদানের হার অতীতের যেকোনো নির্বাচনকে ছাপিয়ে গেছে। এর অন্যতম কারণ, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে ডাকযোগে ও ৩ নভেম্বরের আগেই বহু ভোটার ভোটকেন্দ্রে হাজির হয়ে ভোট দিয়েছেন।

মার্কিন গণমাধ্যমগুলো বলছে, কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটের ১০০ আসনের মধ্যে রিপাবলিকানরা পেয়েছে ৪৭টি ও ডেমোক্র্যাটরা পেয়েছেন ৪৬টি আসন। আর নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫ আসনের মধ্যে ডেমোক্র্যাটরা পেয়েছে ১৮০ ও রিপাবলিকানরা ১৭১ আসন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৭ বার

[hupso]
সর্বশেষ খবর
বেত্রাবতী ডেস্ক।।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘পুলিশের সক্ষমতা বেড়েছে এবং…