শিরোনামঃ

» করোনা আক্রান্ত হয়ে যশোরে দু’জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২১

প্রকাশিত: ২৭. মে. ২০২১ | বৃহস্পতিবার

বিশেষ প্রতিনিধি।।যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের রেডজোনে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত এক মহিলাসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে।

এ সময় রেডজোনে নতুন করে ভারত ফেরত মহিলাসহ তিনজন করোনা রোগী ভর্তি হয়েছেন। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই ওয়ার্ডে মোট ৫০ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে ভারত ফেরত করোনা আক্রান্ত ১৫ জন রয়েছেন।

এদিন করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ ফল আসায় পলাতক এক মহিলাকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। পরে পুলিশ তাকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করে। পরে আদালত তাকে জামিন প্রদান করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার আরিফ আহম্মেদ। এছাড়া, এই দিনে নতুন করে আরও ২১ জনের শরীরে করোনার শনাক্ত হয়েছে।

যশোর সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার রেহনেওয়াজ রনি জানান, বৃহস্পতিবার যশোরে ২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় জিনোম সেন্টারে ৩৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে দু’জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

যমেক হাসপাতালে র‌্যাপিড এন্টিজেন পরীক্ষায় ৫৩ জনের নমুনায় ১৯ জন পজিটিভ এসেছে। এছাড়া খুলনা মেডিকেল কলেজ ল্যাবে দু’জনের নুনা পরীক্ষা করা হয়েছে যার সবগুলো নেগেটিভ ফলাফল এসেছে।

হাসপাতালের রেডজোন সূত্রে জানা গেছে, চিকিৎসাধীন অবস্থায় যশোর সদর উপজেলার নওদা গ্রামের সাহেব আলীর স্ত্রী বিউটি বেগমের (৩৫) মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ডাক্তার নাফিসা আক্তার করোনা ওয়ার্ডে এসে বিউটি বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি গত ২৩ মে শ্বাসকষ্ট, জ্বরসহ বিভিন্ন উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের ইয়োলোজোনে ভর্তি হন। পরে ২৪ মে তার নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ ধরা পড়লে তাকে রেডজোনে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার তিনি মারা যান।

এদিকে বুধবার রাতে হাসপাতালের ইয়োলোজোনে করোনার উপসর্গ নিয়ে লুৎফর রহমান (৭০) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।

তিনি বাঘারপাড়ার বুধপুর গ্রামের আব্দুর রহিম মোল্লার ছেলে।

মৃতের স্বজন আলমগীর হোসেন জানান, লুৎফর রহমান গত ১০-১২ দিন ধরে বাড়িতে জ্বরসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। পরে গত ২৫ মে সকাল সাড়ে নয়টায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে স্বাজনরা তাকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনলে করোনার উপসর্গ থাকায় তাকে ইয়োলো জোনে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে তার মৃত্যু হয়।

অপরদিকে, বৃহস্পতিবার হাসপাতালের রেড জোনে নতুন করে তিনজন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। তারা হলেন, ঝিকরগাছার গদখালি গ্রামের জব্বার আলীর স্ত্রী মলি আক্তার (৫৫), একই উপজেলার মাটিকুমড়া গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে শাহানুর কামাল (৪০) এবং ভারত ফেরত পাবনার ঈশ্বরদী গ্রামের আকরাম হোসেনের স্ত্রী মৌসুমি আক্তার (৩৫)। এদিন হাসপাতাল থেকে সাতক্ষীরা সোনাতলী গ্রামের মমতাজ আলীর স্ত্রী সেফালি বেগমকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।

তবে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়ার অপরাধে ছাড়পত্র পাওয়ার পরে পুলিশ তাকে আদালতে সোপর্দ করে। তিনি আদালত থেকে জামিন নিয়ে বাড়িতে ফিরে যান।

 

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৭৭ বার

[hupso]