শিরোনামঃ

» জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে থাকবেনা কেউ, কঠোর অবস্থানে পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন

প্রকাশিত: ১৪. এপ্রিল. ২০২১ | বুধবার

মোংলা প্রতিনিধি।।মোংলা বন্দর ও পৌর এলাকাসহ সর্বত্র সরকারি ঘোষিত লকডাউন পালিত হচ্ছে।

 

বুধবার সকাল থেকে স্বাস্থ্যবিধি সহ লকডাউন কার্যকর করতে শহর জুড়ে আইনশৃংলা বাহিনীর তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো।

 

এ সময় বিভিন্নি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে অর্থ জরিমান করে ভ্রম্যামান আদালত।

 

এ ছাড়া আটক করা হয় অর্ধশত মটরসাইকেল। তবে আইনশৃংখলা বাহিনীর তৎপরতার মধ্যে অকারেন শহরের অলিগলিতে উৎসক মানুষের ভীড় দেখা গেছে।

মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ আশঙ্কা হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এই মহামারীর ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে বুধবার থেকে সারাদেশে এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউন শুরু করেছে সরকার। লকডাউনের প্রথম দিনে অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কোন মানুষ ঘর থেকে বাহিরে বের হওয়া এবং রাস্তা চলাচল করতে দেয়া হচ্ছে না কোন গাড়ী।

লকডাউনের বিধি নিষেধ মানাতে এবার কঠোর অবস্থানে আছে পুলিশ। মোংলা বন্দর ও পৌর শহর জুড়ে চলছে উপজেলা প্রশাসন ও মোংলা থানার উদ্দ্যোগে অভিযান।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ঠেকাতে আরোপ করা ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ বুধবার (১৪ এপ্রিল) থেকে শুরু হয়েছে, চলবে আগামী ২১ এপ্রিল পর্যন্ত। আর এসময়টা চলাচলের সুনির্দিষ্ট নিষেধাজ্ঞা থাকবে। অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়াও কিছু কিছু জায়গায় মানুষের চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে জনগনের অহেতুক গোড়াফেড়ার না করার জন্য কঠোর অবস্থানেও রয়েছে প্রশাসান।

মোংলা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নয়ন কুমার রাজবংশী জানান, আজকের লকডাউন সম্পর্কে আগে থেকেই মাইকিংয়ের মাধ্যমে লোকজনকে বলা হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে এই লকডাউনে জরুরি প্রয়োজজন ছাড়া আমরা একদম’ই কাউকে বাইরে বের হতে দিচ্ছি না। তার পরে যারা বাইরে বের হচ্ছে এবং অহেতুক ঘোরাফেরাকরছে এবং এদের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর সম্ভাবনার কথা চিন্তা করে তাদের আইনের আওতায় আনা হয়েছে।

এ পর্যন্ত প্রায় ২৫ জনকে জড়িমানা করা হয়েছে। এছাড়াও এ অভিযান অব্যাহত থাকবে এবং চলাচল কারীদের মুভমেন্ট পাশ ফলো করছি বলে জানায় এ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্টে্ট।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮৭ বার

[hupso]