শিরোনামঃ

» দলের ভাঙন নিয়ে যা বললেন কর্নেল অলি

প্রকাশিত: ১৮. নভেম্বর. ২০১৯ | সোমবার

কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিতে (এলডিপি) আনুষ্ঠানিকভাবে ভাঙন দেখা দিয়েছে।

বেলা ১১টায় এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিবৃতিতে এমন তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্যে দেবেন এলডিপির সাবেক সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

‘তবে শাহাদত হোসেন সেলিম বিএনপির প্রতি দুর্বল। তিনি আগের দলের যোগ দেবেন বলে এর আগে জানিয়েছেন। এমনকি তার নিজ এলাকায় এলডিপির কমিটি নেই,’ বললেন এই প্রবীণ রাজনীতিবিদ।

সেলিম এলডিপি নামেই সংঘটিতে হচ্ছেন বলে জানতে চাইলে কর্নেল (অব.) অলি বলেন, এলডিপি একটি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল। আর নিবন্ধনে আমিই হচ্ছি দরখাস্তকারী। অন্য কেউ এই নাম নেয়ার প্রশ্নই আসে না।

এছাড়া যারা তার সঙ্গে যাচ্ছেন, তাদের অনেকেই আমার দলের সাধারণ সদস্যও না বলে দাবি করেন তিনি।

উদহারণ হিসেবে তিনি বলেন, আবদুল করিম আব্বাসী, আবদুল গণি, প্রফেসর আবদুল্লাহর সঙ্গে গত বছরের ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে দলের কোনো সম্পর্ক নেই। মনোনয়ন না পাওয়ায় তারা আমাকে বলেছেন— আর রাজনীতি করবেন না। পরবর্তী পর্যায়ে তারা তিনজন আমার কাছে পদত্যাগপত্র প্রেরণ করেছেন।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক এলডিপির এই নেতা বলেন, আমি সেই পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছি। কাজেই তারা এলডিপির সদস্য না।

দলটির নতুন কমিটি থেকে যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিমকে বাদ দেয়ার পর দলটির ভেতর সংকট তৈরি হয়েছে।

কমিটি থেকে বাদ পড়ার পর এবার তিনি দল ছেড়ে দেয়ারই নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দৈনিক যুগান্তরকে সেলিম বলেন, দলের ভেতর স্বৈরাচারী, অগণতান্ত্রীক ও স্বেচ্ছাচারী আচরণের কারণে আমি বেরিয়ে যাচ্ছি।

গত ৯ নভেম্বর ২০৩ সদস্য বিশিষ্ট দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির তালিকা প্রকাশ করেছে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)।

গত সাত মাস ধরে দলের কোনো কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত না থাকার অভিযোগে দলটির ঘোষিত এই কমিটিতে এই সাবেক সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিবকে রাখা হয়নি।

এ কারণে তিনিসহ এলডিপির বেশ কয়েক নেতা খুব শিগগিরই বিএনপিতে যোগ দেবেন বলে রাজনৈতিক অঙ্গনে গুঞ্জন রয়েছে।

তবে এ প্রতিবেদককে সেলিম বলেন, বিএনপিতে যোগ দেব কিনা — সেই সিদ্ধান্ত এখনই না। আগে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে আরও জোরদার করি। নিজেরা ঐক্যবদ্ধ হই, তারপর দলীয়ভাবে নেতাকর্মীদের সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নেব।

আর সেলিম দল থেকে বের হয়ে গেলে এলডিপি ভাঙনের মুখে পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন দলটির নেতাকর্মীরা। তবে শাহাদাত হোসেন সেলিমকে দলে কোনো পদে না রাখলেও এলডিপি থেকে বহিষ্কার করা হয়নি।

গত ৯ নভেম্বর অলি আহমদের স্বাক্ষরে দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক সালাহ উদ্দিন রাজ্জাক স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে কমিটি গঠনের বিষয় জানানো হয়। এলডিপির মহাসচিব হয়েছেন রেদোয়ান আহমেদ।

আর ১৭ জন সভাপতিমণ্ডলী, ২১ জন সহসভাপতি, ২১ জন উপদেষ্টামণ্ডলী, সাতজন যুগ্ম মহাসচিব, কোষাধ্যক্ষ, সম্পাদকীয়, সহসম্পাদকীয়সহ ১২৬ সদস্যের নির্বাহী সদস্যের নামও প্রকাশ করা হয়েছে ওই তালিকায়।

সেলিমকে পদে না রাখার বিষয়ে এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ বলেন, গত ছয় থেকে সাত মাস ধরে শাহাদাত হোসেন সেলিম দলের কোনো কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না।

তিনি বলেন, আর আমাদের সাধারণ সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিল যে যারা দলের সঙ্গে ও দলীয় কাজে সম্পৃক্ত নেই, তাদের পদে রাখা হবে না। আর এলডিপি সভাপতিকে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য সভা দায়িত্ব দিয়েছিলেন। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনিই।

সেলিম গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসন থেকে এলডিপির প্রার্থী হয়ে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করেন।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে রেদোয়ান আহমেদ বলেন, আমরা সেলিমকে কোনো পদে রাখি নাই। কিন্তু তাকে তো দল থেকে বহিষ্কার করা হয়নি। তিনি এখনো এলডিপির একজন সদস্য।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৬৪ বার

[hupso]
সর্বশেষ খবর
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে সংগঠনটির এক কর্মীসহ দুজন…