শিরোনামঃ

» দেশকে সোনার বাংলা গড়তে পুরুষ কৃষকদের পাশাপাশী নারী কৃষকদের ভুমিকা গুরুত্বপূর্ণ

প্রকাশিত: ২৯. নভেম্বর. ২০২০ | রবিবার

মাসুদ রানা,মোংলা।।পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার বলেছেন, বঙ্গবন্ধ এ দেশকে সোনার বাংলা গড়ার যে সপ্ন দেখেছিলো তা তিনি বাস্তবায়ন করতে পারেনী। আমরা যদি নিজের স্বার্থকে প্রাধান্য না দিয়ে পুরুষের পাশাপাশী সবাই নারীদের অগ্রাধিকারের মাধ্যমে এবং প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনা মতে সম্মিলিতভাবে কাজ করি, তা হলেই সোনার বাংলা গড়া আমাদের পক্ষে সম্ভব এবং আমরাই এদেশ সোনার বাংলা দেখে যেতে পারবো।

রোববার সকাল সাড়ে ১১টায় মোংলা উপজেলা অফিসার্স ক্লাবে কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় ও কৃষক সমাবেশ আয়োজন করেন সেচ্ছাসেবী সংগঠন।

রোববার সকাল ১১টায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে পুরুষ ও নারী কৃষকদের এ সমাবেশে উপস্থিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শনা দেশের কোন জমি অনাবাদী থাকবেনা এমন প্রতিশ্রুতিকে বাস্তবায়ন করতে পুরুষের পাশাপাশী নারী কৃষকদের প্রশিক্ষনের মাধ্যমে সাবলম্ভী করা হচ্ছে। তাই শুধু কৃষি জমি নয়, বাড়ী ও বাড়ীর আশ-পাশের অনাবাদী জমি কৃষি কাজে ব্যাবহৃত করার জন্য নারীদের উৎসাহ দেয়া হয় এ কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠানে।

উপমন্ত্রী আরো বলেন, এ দেশের প্রধানমন্ত্রী একজন নারী। এদেশ স্বাধীনতার সময় নারীরা যদি কঠোর ভাবে ভুমিকা না নিতো তা হলে স্বাধীনতা লাভ আমাদের পক্ষে সম্ভব হতো না। এ ছাড়াও দেশের সকল উন্নয়ন কাজে নারীরাই অনেক ভুমিকা রেখেছে। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগামী ভিশন বাস্তবায়ন করতে নারীদেরই অগ্রাধিকার বেশী থাকবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদারের সভাপতিত্বে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নহারা হাই,সহাকারী কমিশনার (ভুমি) নয়ন কুমার রাজবংশী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ইস্রাফিল হাওলাদার সোনাইলতলা ইউপি চেয়ারম্যান নার্জিনা বেগম নাজিনা, চাদঁপাই ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা তারিকুল ইসলাম, সুন্দরবন ইউপি চেয়ারম্যান শেখ কবির উদ্দিন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা অনিমেশ বালা, প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ওয়াসিম আরমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আনোয়ারুল কুদ্দুস, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন্ত পোদ্দার, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সেলিমসহ দলীয় ও উপজেলা বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তা ও এলাকার কৃষক ও প্রায় দুই শতাধিক নারী কৃষক এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১০৭ বার

[hupso]