শিরোনামঃ

» পাটকেলঘাটায় ধর্ষণে কিশোরী হলো মা,অভিযুক্ত আটক

প্রকাশিত: ১২. জুন. ২০২১ | শনিবার

বেত্রাবতী ডেস্ক।।সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটায় কিশোরী ধর্ষনের ফলে জন্ম হয় এক সন্তানের।

এঘটনায় শিশুর পিতা হযরত আলী বিশ্বাসকে (২১) আটক করেছে পুলিশ।

সে পাটকেলঘাটা থানার তৈলকুপি গ্রামের শাহাবুদ্দিন বিশ্বাসের ছেলে।

জানাযায়, গতকাল শুক্রবার (১১ জুন) দুপুরে তৈলকুপি গ্রামের ঐ কিশোরী  (১৪) বাদী হয়ে থানায় একটি ধর্ষন মামলা দ্বায়ের করেন।

এ ঘটনার ২ ঘন্টার পর অভিযুক্ত হযরতকে আটক করে।

পাটকেলঘাটা থানা পরিদর্শক কাজী ওয়াহিদ মুর্শেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে  জানান, ধর্ষন মামলায় অভিযুক্ত হযরত আলী বিশ্বাসকে  গতকাল গ্রেফতার করা হয়েছে ।

শনিবার(১২জুন)  সকালে তাকে বিজ্ঞ আদলতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

শিশুটির জন্মদানের পর তার  পিতার অস্তিত্ব  নিয়ে  এলাকায় রহস্যের গুজ্ঞন শোনা যায়।   উপায় না পেয়ে অবশেষে  একই এলাকার সাহাবুদ্দীন বিশ্বাসের ছেলে  হযরত আলী  বিশ্বাস (২১) নাম উল্লেখ করে  থানায় ধর্ষন মামলা দ্বায়ের করে ভুক্তভোগী ঐ কিশোরী   মা।

চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটে  বৃহস্পতিবার  (১০জুন) রাতে  জেলার পাটকেলঘাটা থানার কৈলকুপি গ্রামে।  এজাহার সুত্রে জানা যায়, ১ বছর পূর্বে  পাটকেলঘাটার আমিরুননেচ্ছা বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেনীতে পড়াশুনা চলাকালীন  হযরতের সাথে ভুক্তোভোগীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ।

অতঃপর  এই প্রেম গিয়ে গড়ায় অবৈধ সম্পর্কে।  ভিক্টিমের বক্তব্য অনুযায়ী, সচুতুর হযরত বিয়ের প্রলোভন দেখিয়েগত২৫-১০-২০২০

তারিখে প্রথম  এবং   এরপর  একাধিক বার ধর্ষনের স্বীকার হয় সে  । ধর্ষনের একপর্যায়ে অন্তঃস্বত্তা হয়ে বিষয়টি  হযরতকে জানালে  বিয়ে নিয়ে তালবাহানা শুরু করে দেয়  ।

নিরুপায়  হয়ে বিষয়টি  ওই ছাত্রী তার  বাবা, মাকে জানায়। পরবর্তীতে   তার পরিবার   হযরতকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। সর্বশেষ গত ১০ জুলাই  বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিজ বাড়িতে কিশোরী মা   পুত্র সন্তানের জন্ম দেয়।

বর্তমানে শিশুটি সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগীর মা মরিয়ার বেগম জানায়, আমার মেয়ের সাথে যা ঘটেছে তা লজ্জায় মুখ দেখাতে পারছিনা। ঐ সন্তানের পিতা হযরত  আমি  তার বিচার চাই।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৫৯ বার

[hupso]