রিপোর্টে বলা হয়েছে, ফলাফলের প্রাথমিক ট্রেন্ড দেখে দলের নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করার বার্তা দিয়েছেন মমতা। তৃণমূল সূত্রের খবর, কর্মীদের উদ্দেশে তৃণমূলনেত্রী জানিয়ে দিয়েছেন, রাজ্যে তৃণমূল দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়েই ক্ষমতায় ফিরবে।

গতকাল রবিবার সকাল ৮টা থেকে রাজ্যের ২৯২ আসনের ভোটগণনা শুরু হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ফলাফলের ট্রেন্ডে এগিয়ে খুশি তৃণমূল সুপ্রিমো। সাতসকালেই কালীঘাটে দলের ওয়ার-রুম থেকে মমতা দলের কর্মীদের বার্তা দিয়েছেন, তৃণমূল-কংগ্রেস তৃতীয়বারের জন্য রাজ্যে ক্ষমতায় ফিরতে চলেছে। এবং সেটা দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিশেষভাবে উল্লেখ করেছেন মালদহ এবং মুর্শিদাবাদের কথা।

তৃণমূল ত্যাগের আগে এই দুই জেলায় দলের পর্যবেক্ষক ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তাছাড়া এই দুটি জেলাই কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ছিল। খোদ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর ঘরের মাঠেই ভাল ফলের ইঙ্গিত পেয়েছে তৃণমূল। মালদহে তৃণমূল এতদিন ছিল তৃতীয় শক্তি। সেখানেও এবার কার্যত প্রথম শক্তি হিসেবে উঠে আসার ইঙ্গিত দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। স্বাভাবিকভাবেই খুশি মমতা। তিনি মালদহ এবং মুর্শিদাবাদের দলীয় কর্মীদের বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

ওদিকে, নন্দীগ্রামে মমতা এখন পর্যন্ত পিছিয়ে থাকলেও দলটির নেতা শোভণদেব দাবি করেছেন, শেষ পর্যন্ত তৃণমূল নেত্রীই জয়ী হবেন। তার কথায়, আজকের দিনে এসে বলব, আমি জিতছি। দল জিতছে। নেত্রী জিতছেন। নিজের আসনে হেরে যাচ্ছেন মমতা!

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের জয়ের আভাস পাওয়া গেছে। তৃতীয় বারের মতো সরকার গঠনে কংগ্রেস প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্টতা পেতে যাচ্ছে বিষয়টি অনেকটাই স্পষ্ট। তবে দলটির প্রধান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় তার নিজের আসন নন্দীগ্রামে পিছিয়ে আছেন। শেষ পর্যন্ত এই আসনে ধরাশায়ী হয়ে গেলে এটি হবে লৌহমানবী মমতার রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে একটি বড় ধরনের বিপর্যয়।

গতকাল রবিবার সকাল থেকে ষষ্ঠ রাউন্ডের ভোট গণনায় নন্দীগ্রাম আসনে বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী ৭ হাজার ২৬২ ভোটে
মমতার চেয়ে এগিয়ে আছেন। এ আসনে মোট ১৭ রাউন্ডে ভোট গণনা হবে বলে আনন্দবাজার জানিয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমসের খবর অনুযায়ী, সকাল ৯ টা ২০ মিনিটে প্রথম রাউন্ডে ১ হাজার ৪শ ৯৭ ভোটে এগিয়ে ছিলেন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু। সকাল ৯ টা ৪৫ মিনিট দ্বিতীয় রাউন্ডের গণনা শেষে লিড বাড়িয়ে ৪,৫০০-এর বেশি ভোটে এগিয়ে যান শুভেন্দু।

তৃতীয় রাউন্ড শেষে মমতার সঙ্গে তার ভোটের ব্যবধান দাঁড়ায় ৭ হাজার ২৬২। তবে হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, পঞ্চম রাউন্ডের শেষে ৩,৬৮৬ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। কমেছে তার লিড। ব্যবধান কমিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতার প্রতিদ্বন্দ্বী শুভেন্দু তারই একসময়ের ডান হাত, মন্ত্রিসভার সাবেক সদস্য। তিনি গত ডিসেম্বরে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। গত ১ এপ্রিল নন্দীগ্রামে ভোট হয়। এই দফার ভোটে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও আকর্ষণের কেন্দ্রে ছিল নন্দীগ্রাম। নির্বাচনের পর বিপুল ভোটে জয়ী হওয়ার ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছিলেন মমতা ও শুভেন্দু।

মমতা বলেছিলেন, তিনি নিশ্চিত, এই আসনে ৯০ শতাংশ ভোট পেয়ে তিনিই জিতবেন। অন্যদিকে, শুভেন্দু বলেছিলেন, তিনি অন্তত ৭০ হাজার ভোটের ব্যবধানে মমতাকে হারাবেন। এক সময় মমতার ‘লেফটেনেন্ট’ হিসেবে পরিচিত শুভেন্দু এবারই প্রথম পদ্মফুল নিয়ে লড়ছেন। ২০১৬ সালে এ আসনে ঘাসফুলের প্রার্থী হিসেবে জয়ী হওয়া শুভেন্দু গতবছর ডিসেম্বরে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন।