শিরোনামঃ

» ভিডিও কলে প্রেমিকের আত্মহত্যা !

প্রকাশিত: ০৪. জুন. ২০২১ | শুক্রবার

বেত্রাবতী ডেস্ক।।তুমি  বলো আমাকে বিয়ে করবে কি না , আর না করলে আমি আত্নহত্যা করব। রশি ঝুলিয়ে ভিডিও কলে প্রেমিকার কাছে এ কথা জানতে চেয়েছিলেন হতভাগা প্রেমিক জিহাদী।

এরপর প্রেমিকা মীমের ‘না’ উত্তর শোনার  সাথে সাথেই জিহাদী ঝুলে পড়লেন রশিতে।
প্রেমিকাও ভিডিও কলে  চোখের সামনে প্রেমিকের চলে যাওয়া দেখলেন।
ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার বিকেলে প্রেমিকা ছিলো বেনাপোলে আর প্রেমিক চট্টগ্রামে ।
বেনাপোল পোর্ট থানার সাদিপুর গ্রামের তাহের আলীর ছেলে জিহাদী চট্রগ্রামে  এম, এম, ইন্টারপ্রাইজ নামে একটি সিএন্ডএফ কোম্পানীতে কাজ করতন। পরে তার নিজ রুম থেকে পুলিশ ও স্খানীয়রা লাশ উদ্ধার করে পরিবারের হাতে লাশ হস্তান্তর করে।
এদিকে, বেনাপোল পোর্ট থানার সরবানহুদা গ্রামের সেলিম হকের মেয়ে প্রেমিকা মিমের ভাষ্য জিহাদী সিগারেট খাওয়ায় তার উপর অভিমান করে বলেছেন বিয়ে করবে না।
তবে, জিহাদীর পরিবার ও স্থানীয়দের অভিযোগ, মীমের একাধিক ছেলের সাথে প্রেমের সম্পক রয়েছে। বিভিন্ন ছেলেদের কাছথেকে টাকা হাতিয়ে নেয়া তার কাজ।
এমনটি হয়েছিলো জিহাদীর ক্ষেত্রে। মীমের অত্যাচারেই জিহাদী আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছে।
জিহাদীর ছোট ভাই মেহেদী হাসান বলেন, প্রায় দুই বছর তার ভাইয়ের সঙ্গে মিম এর সম্পর্ক রয়েছে। সম্পর্কের জের ধরে তার মা ওই বাড়িতে যাতায়াতও করতেন।
মিমকে তারা ভাইয়ের সাথে বিয়ে দিতেও ইচ্ছা প্রকাশ করে। ভাই চট্রগ্রাম থাকে আর মিম যশোর লেখা পড়া করায় তাদের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বার্তাও হয়। চট্রগ্রাম থেকে সে মিমকে লেখা পড়ার খরচও দেয়।
ভাই জানতে পারে মিম আরো ছেলেদের সাথে প্রেম করে। এ বিষয় নিয়ে সে মিম এর কাছে জানতে চায় তুমি আমাকে বল আমার সাথে বিয়ে করবে কি না , আর না করলে আমি আত্নহত্যা করব। যা রশি ঝুলিয়ে মিমকে দেখিয়ে ভিডিও কলে কথা হয়।
মিম ওই রশি দেখেও তাকে না করে দেয় এবং আত্নহত্যা করলে তার কিছু যায় আসে না বলে জানিয়ে দেয়। এরপর জিহাদী গতকাল বুধবার চিটাগাং নিজ রুমে আত্নহত্যা করে।
সরেজমিনে সাদিপুর গেলে স্থানীয়রা  বলেন, জিহাদী অত্যান্ত সরল সোজা ভালো মেধাবী ছেলে ছিলো। সে ওই মেয়েকে ভালবাসত। এতে তার পরিবারেরও কোন আপত্তি ছিলা না।
আর মেয়েটি ইন্টারমিডিয়েড পড়া থেকে  প্রেমের অভিনয় করে অর্থও হাতিয়ে নিয়েছে।
এছাড়া মেয়ের পরিবার থেকে ছেলের কাছে বিয়ে দিবে বলে দুই লাখ টাকা দাবিও করা হয় বলে তারা অভিযোগ করেন।
মিম এর কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে সে বলে তার সাথে দীর্ঘদিন সম্পর্ক ছিল। সম্প্রতি সে সিগারেট খাচ্ছে এমন কথা শুনে তাকে না বলা হয়েছে অভিমান করে আত্নহত্যা করেছে।
মিমের পিতা সেলিম হক বলেন, মেয়ের সাথে জিহাদীর প্রেমের সম্পর্ক আছে জানি। তবে তাদের সাথে বিয়ে দিতে আমার কোন আপত্তি ছিল না। কেন কি কারনে সে আত্নহত্যা করেছে আমি জানিনা। তাদের নিকট বিয়ে দেওয়া বাবদ ২ লাখ টাকা দাবি করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি অস্বীকার করেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ১২২ বার

[hupso]