শিরোনামঃ

» মোংলায় পাওনা টাকার সূত্র ধরে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলায় আহত-৪

প্রকাশিত: ১২. জুন. ২০২১ | শনিবার

মোংলা প্রতিনিধি।।মোংলায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নারীসহ হিন্দু সম্প্রদয়ের লোকজনকে মেরে রক্তাক্ত জখম করেছে সন্ত্রাসীরা বলে অভিযোগ উঠেছে।

পাওনা টাকার সুত্র ধরে হত্যার উদ্দ্যোশ্যে এ হামলার ঘটনা ঘটটানো হয়েছে বলে বাদী অভিযোগ করে।

আহতদের চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে আসলে সন্ত্রাসীরা তাদের হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র ফেলে দ্রুত পালিয়ে যায়।

উপজেলার চিলা বাজার সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এব্যাপারে প্রভাবশালী ওই গ্রুপটির ভয়ে থানায় অভিযোগ দিতে না পাড়ায় শুক্রবার সকালে মোংলা থানায় মামলা হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রত্যাক্ষদর্শী ও থানায় মামলা সুত্রে জানা যায়, বাদীর চাচা নির্মল মন্ডলের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ধার নেয় আসামী যোগেশ রায়। যা ৬ মাসের মধ্যে পরিশোধ করার কথা থাকলেও স্থানীয় এক ইউপি সদসস্যের পক্ষে নির্বাচন না করায় ধার নেয়া ওই টাকা দিতে নিষেধ করে ওই ইউপি সদস্য।

এ নিয়ে যোগেশের কাছে পাওনা টাকার কথা নির্মল জানতে চাইলে ৮জুন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে টাকা অনার জন্য বাড়ীতে যেতে বলে যোগেশ রায়। ওই দিন সন্ধ্যায় নির্মল মন্ডল, স্ত্রী চপলা মন্ডল ও সঞ্জয় মন্ডল কাছে পাওনা টাকা আনতে গেলে টাকা দিবেনা বলে বাড়ী থেকে বের করে দেয় যোগেশ রায়।

এসময় এ টাকা নিয়ে তাদের মধ্যে বাক-বিতান্ডায় এক পর্যায় যোগেশের পুর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ইউপি সদস্য হালিম মেম্বরের পরামর্শে আসামীরা দেশীয় অস্ত্র ও লাটি-সোটা ও লোহার রড দিয়ে চাচা নির্মল মন্ডল, চাচী চপলা মন্ডল ও সঞ্জয় মন্ডলকে এলোপাতাড়ীভাবে মারতে থাকে।

এতে নির্মল, তার স্ত্রী চপলা মন্ডল ও সঞ্জয় মন্ডল রক্তাক্ত জখম হয়।

এসময় ওই সকল আসামীরা চপলা মন্ডলকে তার পড়নের কাপড় টানা-হেচড়া করে শ্লীলতাহানী ঘটায় বলে থানার মামলায় উল্লেখ করে।

তাদের চিৎকার শুনে ভাইয়ের ছেলে মামলার বাদী সুজিত মন্ডল ঘটনাস্থলে ঠেকাতে গেলে আসামীরা আরো উত্তেজিত হয়ে সজিত মন্ডলকে হত্যার উদ্দেশ্যে আসামীদের হাতে থাকা কুড়াল দিয়ে সজোরে আঘাত করে।

এতে সুজিত রক্তাক্ত জখম হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পরে। আহতদের আর্তনাতে স্থানীয়রা ছুটে আসলে ওই সকল সন্ত্রাসীরা ঘটনা স্থল থেকে দ্রুত পালিয়ে যায়।

পরে আহত সুজিতসহ অন্যান্যদের রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে জয় রায়, প্রসেনজিত রায়, যোগেশ রায়, অলোকা রায়, বিজয় রায় ও সুজন মন্ডলকে আসামী করে মোংলা থানায় শুক্রবার সকালে মামলা দায়ের করা হয়েছে। যার নং-০৩।

মামলার বাদী সুজিত মন্ডল শুক্রবার সন্ধ্যায় সাংবাদ কর্মীদের বলেন, স্থানীয় ইউপি মেম্বার হালিম হাওলাদারের পক্ষে নির্বাচন না করায় আমাকে ও আমার পরিবারের লোকজনকে বিভিন্ন সময় হুমকি-ধামকী দিয়ে আসছিল তিনি ও তার সন্ত্রাসীরা। তাই চাচার পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে পুর্ব শত্রুতার জেরে আমাদের উপর এ সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি মেম্বর আঃ হালিম হওলাদার বলেন, পাওনা টাকা নিয়ে চিলা বাজার এলাকায় একটি মারামারির ঘটনা আমি শুনেছি। কিন্ত ইউপি নির্বাচনী কোন শত্রুতা আমার সাথে করো নাই।

কারণ বাজার এলাকার সকল ভোটারই আমার, এগুলো অন্য প্রার্থীর পক্ষে যাওয়ার কোন সুযোগ নাই বলে জানায় এ ইউপি মেম্বর।

মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ  ইকবাল বাহার চৌধুরী জানায়, চিলা এলাকায় একটি মারামারি ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৪ বার

[hupso]