শিরোনামঃ

» মোংলা বন্দরে বৈরী আবহাওয়া ও ভারী বৃষ্টি

প্রকাশিত: ২১. সেপ্টেম্বর. ২০২০ | সোমবার

বিশেষ প্রতিনিধি: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে মোংলা বন্দরে স্থানীয় ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলে আবহাওয়া অফিস। লঘুচাপের ফলে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উপকুলীয় এলাকা ও বন্দরসমুহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানানো হয়।

সাগরের লঘুচাপের কারনে বন্দরসহ সুন্দরবন উপকূলীয় এলাকায় দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করছে।সাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হওয়ার পর সোমবার ভোর রাত থেকে বন্দর ও পৌর শহরে থেমে থেমে হালকা আবার কখনও একটানা ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে।

সকাল থেকেই মেঘাচ্ছন্ন রয়েছে আকাশ। শহর তলীর অনেক নিম্মাঞ্চলে বৃষ্টির পানি নামতে না পেরে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। বসবাসকারী এসব এলাকার মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে।

এদিকে বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, মোংলা সমুদ্র বন্দরে সার, ক্লিংকার, কয়লা, পাথর ও মেশিনারিজসহ বেশ কয়েকটি বানিজ্যিক জাহাজ পন্য খালাসের জন্য অবস্থান করছে। লঘু চাপের প্রভাবে টানা বৃষ্টির দরুণ মোংলা বন্দরে অবস্থানরত পন্যবাহী ১১টি বাণিজ্যিক জাহাজ থেকে পণ্য খালাস-বোঝাইয়ের কাজ ব্যাহত হচ্ছে।

সোমবার বিদেশী পন্য নিয়ে নতুন দুইটি বানিজ্যিক জাহাজ বন্দরের প্রবেশ করবে এবং পন্য খালাস শেষে দুইটি জাহাজ বন্দর ত্যাগ করার কথা রয়েছে বলে জানায় হারবার বিভাগ বিভাগীয় প্রধান হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দিন।

অপরদিকে, বন্দরের পশুর চ্যানেলসহ সুন্দরবনে বিভিন্ন নদ-নদীতে হালকা থেকে মাঝারী ঢেউ অনুভূত হচ্ছে। মাছ ধরার সকল ট্রলার ও নৌকা সমুহকে উপকথলের কাছাকাছি থেকে নিরাপদে চলাচল করতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

তবে সুন্দরবনের অভ্যান্তরে মাছ ধরার জেলেরা লঘুচাপ সৃষ্টি হওয়ার পর থেকেই অফিস সংলগ্ন নিরাপদ খালগুলোতে আশ্রায় নিয়ে চলাচল করছে বলেও জানায় চাদঁপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ এনামুল হক

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৭২ বার

[hupso]
সর্বশেষ খবর
বেত্রাবতী ডেস্ক।।আগামী মাস কিংবা নভেম্বর থেকে আরেকবার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে…