শিরোনামঃ

» যশোরে এনটিভির ক্যামেরাপারসন শামীমকে মারপিটে অভিযুক্ত সাকিব আটক

প্রকাশিত: ২০. এপ্রিল. ২০২১ | মঙ্গলবার

বিশেষ প্রতিনিধি।। যশোরে এনটিভির ক্যামেরা পারসন শামীম রেজাকে মারপিটের ঘটনায় অভিযুক্ত বখতিয়ার আহম্মেদ সাকিবকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকাল নয়টায় সাকিবের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাকে আটক করে।

সাকিব  কাজীপাড়া ডায়মন্ড ক্লাব এলাকার সেলিম আহম্মেদের ছেলে।এর আগে গতকাল সোমবার শামীমের উপর হামলা চালায় সাকিব।

এঘটনায় রাতে আহত শামীম রেজা বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় মামলা করেন।

শামীম চৌগাছা ‍উপজেলার সাঞ্চাডাঙ্গা গ্রামের মুন্তাজ আলীর ছেলে। বর্তমানে তিনি কাজীপাড়া আমতলা মোড়ে ভাড়া বাড়িতে থাকেন।

মামলায়  শামীম রেজা উল্লেখ করেন, বিকেল সাড়ে চারটার দিকে তিনি পুরাতন কসবা কাজীপাড়ায় তারা ভাড়াবাসায় ফিরছিলেন। পথে ডায়মন্ড প্রেসের মোড়ে সিহাব স্টোরে সামনে থেকে জিনিস পত্র কিনছিলেন।
এসময় সাকিব বলেন,  (১৮ এপ্রিল) চার নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পৌরপরিষদের প্রথম মিটিংয়ে মেয়রের সাথে বাক বিতন্ডায় জড়ায়।
শামীম বলেন, ‘কই আমরা তো সেখানে ছিলাম, কেউ কোনো আজেবাজে কথা বলেনি’। এসময় সাকিব তার উদ্দেশে তেড়ে আসেন। ‘তুই বড় সাংবাদিক হয়েছিস’- এই কথা বলে তাকে প্রথমে গালিগালাজ সহ চড়-থাপ্পড় মারতে শুরু করে। পরে হত্যার উদ্দেশ্যে রড এনে মারপিট শুরু করে গুরুতর জখম করে। এরপর শামীম মাটিতে  ‍লুটিয়ে পরে।
এসময় সাকিব শামীমের পকেট থেকে মোবাইল ফোন ও ম্যানিব্যাগ ছিনিয়ে নেন। ফোনের দাম ১৫ হাজার টাকা ও তার মানিব্যাগে থাকা নগদ ১০ হাজার ৮শ’টাকা ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিলো। পরে শামীম প্রানভয়ে দৌড়ে দোকানের মধ্যে চলে যায়। এরপর সাকিব লোহার রড দিয়ে তার মোটর সাইকেলটির সামনের অংশ ও তেলের ট্যাংক ভেঙে ৪০ হাজার টাকার ক্ষতি করে বলে মামলায় উল্লেখ করেন শামীম। পরে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে খুন জখমের হুমকি দিয়ে পালিয়ে যায় সাকিব।
এদিকে, শামীমের উপর হামলার ঘটনায় সাংবাদিকরা একট্টা হয়ে সাকিবের আটকের দাবি জানান। আটকের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভের ডাক দেয়।
ঘটনার পরের দিন সকালেই সাকিবকে আটকের সংবাদে সাংবাদিকদের তরফথেকে যশোরের পুলিশ প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানানো হয় ।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৬৮ বার

[hupso]