শিরোনামঃ

» সুন্দর দেশ গঠনে একজন সুশিক্ষিত মায়ের কোন বিকল্প নেই-এমপি শেখ আফিল উদ্দিন

প্রকাশিত: ২২. ফেব্রুয়ারি. ২০২০ | শনিবার

আসাদুজ্জামান নয়ন,বাগআঁচড়া।।
যশোর-১ শার্শার সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, শিক্ষিত মা ব্যাতীত একটি শিক্ষিত জাতি গড়া অসম্ভাব আর শিক্ষিত জাতি ছাড়া উন্নয়নশীল রাষ্ট্র গড়া সম্ভাবপর নয়। মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য মা‘দের ভুমিকা অতিগুরুত্বপূর্ণ। শিশুর প্রথম হাতেখড়ি মায়েদের কাছে। ছেলে মেয়ে স্কুলে ঠিকমতো পড়ালেখা করছে কিনা বাবা-মায়ের খোঁজখবর নিতে হবে। সুশিক্ষিত মা পারেন একটি শিক্ষিত জাতির জন্ম দিতে। শিশুকে আদর্শ মানুষ হিসাবে গড়ে তুলতে হলে বিদ্যালয়ের পাশাপাশি মা কে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তেমনি একজন সস্তানের কাছে মা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ শিক্ষক। সভ্য সমাজ, সুন্দর জাতি ও উন্নত দেশ গঠনে একজন সুশিক্ষিত মায়ের কোন বিকল্প নেই। সস্তান জন্মের পর থেকে তার লালন পালন করার জন্য সবার আগে দরকার তার মাকে। মায়ের কাছ থেকেই সস্তান প্রথম শিক্ষা গ্রহণ করে তাই প্রত্যেক মা তার সস্তানের প্রথম শিক্ষক, প্রথম স্কুল। মা যদি শিক্ষিত হয় তাহলে তার সস্তান অবশ্যই শিক্ষিত হবে। মায়ের কাছ থেকে সুশিক্ষা নিয়ে একজন সস্তান সুশিক্ষিত হয়। আর সেই সস্তানরাই পরবর্তীতে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, জজ, ব্যারিষ্টার, আমলা, এমপি, মন্ত্রী, প্রধান মন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি হয়। কিন্তু এসব কিছু হওয়ার আগে সবার আগে দরকার হয়েছিলো মায়ের কাছ থেকে শিক্ষা। মা’দের টিভি সিরিয়াল দেখা থেকে সতর্ক থাকতে হবে। শনিবার সকালে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার রাজ মনির সভাপতিত্বে বাগআঁচড়া ৪৪নং সোনাতনকাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালুয়ের মাঠে আয়োজিত মতবিনিময় সভা, ডিজিটাল হাজিরা উদ্বোধন ও মা সমাবেশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, সাধারন মানুষের ভাগ্যের উন্নতির জন্য প্রত্যেক ঘরে ঘরে সুসন্তান জন্ম দিতে হবে। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের লক্ষ্য দেশকে দারিদ্র মুক্ত করা, দারিদ্রের হার নামিয়ে আনা। যে দেশ বলেছিলো বাংলাদেশ স্বাধীন হলে একটি তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হবে। সেদেশের দারিদ্রের হার ১৮ শতাংশ, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য হচ্ছে ওই হার ১৮ শতাংশ থেকে এক শতাংশ হলেও কম করবে। শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, পড়ালেখার মান উন্নয়নের জন্য কৌশলগত পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। প্রত্যেক শিক্ষককে নিয়মিত মিটিং করতে হবে। অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগ রাখতে হবে। একজন ছাত্র-ছাত্রীর জন্য বর্তমান সরকার ৭হাজার টাকা ব্যয় করে। তাহলে ছেলেদের পড়ালেখার মান উন্নতি করতে অবহেলার কোন সুযোগ নেই। পাকিস্তান থেকে আলাদা হয়ে বাংলাদেশকে আমরা স্বাধীন করেছি। অর্থনৈতিকভাবে, সামাজিকভাবে, নীতি আদর্শিকভাবে যেভাবেই হোক ওই পাকিস্তানের ওপর আমরা থাকবোই। সত্যি আজ আমরা তা আছি। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা সমিতির সাধারণ সম্পাদক ওসমান গনি মুকুলের সঞ্চালনায় এ সময় বিশেষ অথিতি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শাশা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদি হাসান, উপজেলা সদ্য বিদায়ী শিক্ষা অফিসার আব্দুর রব, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবির বকুল, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন, এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাগআঁচড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ সুকদেব রায়, কায়বা ইউনিয়নের সভাপতি হাসান ফিরোজ আহম্মদ টিংকু, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ইঞ্জিয়ার আবুল কালাম আজাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, বাগআঁচড়া ডাঃ আফিল উদ্দীন অনার্স কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন তুতুল, আলমগীর কবির মেম্বর, আবু তালেব মেম্বর, আসাদুল ইসলাম মেম্বর, আশরাফ আলী আশু মেম্বর, আলী আহম্মদ মেম্বর, শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার বাগআঁচড়া কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি অহিদ হাসান, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান অপু, কায়বা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ মাসুদ রানা চঞ্চল, সাধারণ সম্পাদক মিল্টন হাসান প্রমুখ। প্রধান অতিথি অনুষ্ঠান শেষে কৃতি শিক্ষীদের হাতে ক্রেস প্রদান ও স্কুলের ডিজিটাল হাজিরা উদ্বোধন করেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৯৭ বার

[hupso]
সর্বশেষ খবর
নিজেস্ব প্রতিনিধি : ১৪ই ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার) আনুমানিক রাত সাড়ে ৮টায়…