সর্বশেষ খবর :
মুজিববর্ষ

» শ্বশুরবাড়িতে কিশোরী গৃহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগে কারাগারে ব্যবসায়ী

প্রকাশিত: ০৭. ফেব্রুয়ারি. ২০২০ | শুক্রবার

কাজের মেয়েকে প্রা’য় ধ’র্ষণ ক’রতেন ব্যবসায়ী, শেষে খেলেন ধরা-শ্বশুরবাড়িতে কিশোরী গৃহক’র্মীকে ধর্ষণের অভিযোগে কা’রাগারে গেছেন ড. মাহমুদুল হাসান (৪১) নামের এক ব্যবসায়ী।গত সোমবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর মিরপুরের ৩৫১/৫ পশ্চিম শ্যাওড়াপাড়ায় এ ঘ’টনা ঘটে।

গত বুধবার মধ্যরাতে ১৪ বছরের ভু’ক্তভো’গী ওই গৃ’হক’র্মী বাদী হয়ে ড. হাসানের বি’রুদ্ধে মিরপুর থা*নায় না’রীশি’শু নি’র্যাতন দ’মন আ’ইনে মা’মলা করে।রাতেই গ্রে’প্তার করা হয় অ’ভিযুক্ত ব্যবসায়ীকে।শারীরিক পরী’ক্ষার জন্য ওই কি’শোরীকে বৃহস্পতিবার বৃহস্পতিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হা*সপা*তালের ওয়ান স্টপ ক্রা’ইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পা’ঠিয়েছে পু’লিশ।

বৃহস্পতিবার ড. হাসানকে আ’দালতে তোলা হলে তাকে কা’রাগারে পা’ঠানোর নি’র্দেশ দেন বি’চারক।ভু’ক্তভো’গী গৃ’হক’র্মী জানায়, অনেক আগেই তার মা-বাবা মা’রা গেছেন।দেড় বছর ধরে ড. মাহমুদুল হাসানের শ্বশুরের (মিরপুরের ৩৫১/৫ পশ্চিম শ্যাওড়াপাড়া) বাসায় গৃ’হক’র্মী হিসেবে কাজ করছে সে। এই বাসায়ই থাকেন ড. হাসানের স্ত্রী’’।

স্ত্রী’র স’ঙ্গে দেখা ক’রার সু’বাদে প্রায়ই শ্ব’শুরের বাসায় আসেন হাসান।গত ২০ ডিসেম্বর রা’তের কাজ শেষ করে ওই কি’শোরী তার কক্ষে ঘু’মিয়ে প’ড়ে। রাত ১টার দিকে ঘু’মন্ত অবস্থায় মে’য়েটির স্প’র্শকা’তর স্থানে হাত দিলে তার ঘু’ম ভেঙে যায়।

এ সময় চি’ৎকার দেওয়ার চেষ্টা করলে হ’ত্যার হু`মকি দিয়ে মেয়েটিকে ধ’র্ষণ করে হাসান। এরপর বিভিন্ন সময় একই হু`মকি দিয়ে মে’য়েটিকে ধ’র্ষণ করেন ড. হাসান। কোথায় যাবে সে চি’ন্তা থেকে সব কি’ছু স’হ্য ক’রছিল মে’য়েটি।

সর্বশেষ গত সোমবার দি’বাগত রা’ত দে’ড়টার দি’কে গৃ’হক’র্মীকে ফের ধ’র্ষণ করেন ওই ব্যবসায়ী। হাসানের অপকর্মের কথা তার স্ত্রী’’কে জানালে তিনিই মা’মলা দা’য়ের ক’রার পরাম’র্শ দেন।

হাসানের দৃ’ষ্টান্তমূ’লক শা’স্তি দাবি করে ভু’ক্তভো’গী কি’শোরী।মা’মলার ত’দন্ত কর্মক’র্তা মিরপুর থা*নার এসআই আবদুল কাদের আমাদের সময়কে বলেন, অ’ভিযোগ পাওয়ার প’রপরই ড. মাহমুদুল হাসানকে গ্রে’প্তার করা হয়। তিনি বিভিন্ন ব্যবসার সঙ্গে জ’ড়িত। আজ আ’দালতের নি’র্দেশে তাকে কা’রাগারে পা’ঠানো হয়।

বাদীর শারীরিক পরী’ক্ষার প্রতিবেদন পেলে পরবর্তী ব্য’বস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৬ বার

[hupso]