সর্বশেষ খবর :

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১২৩
সুস্থ
৩৩
মৃত্যু
১২

বিশ্বে

আক্রান্ত
১,৩১৮,২২৯
সুস্থ
২৭৬,১৮৭
মৃত্যু
৭২,৭৬৬

» করোনাভাইরাস সম্পর্কিত সব প্রশ্নের উত্তর

প্রকাশিত: ০৫. মার্চ. ২০২০ | বৃহস্পতিবার

নিঃসন্দেহে এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হলো করোনাভাইরাস। মরণঘাতী এই ভাইরাস নিয়ে অনেকের মনেই নানা প্রশ্ন জাগতে পারে।

করোনাভাইরাস বলতে এক গোত্রের অনেকগুলো ভাইরাসকে বোঝায়, যা মূলত প্রাণিদের মধ্যে পাওয়া যায়। তবে মানুষের মধ্যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ হওয়ার সাথে সাথে তা মারাত্মক আকার ধারণ করে।

প্রাণি থেকে মানুষের মধ্যে ভাইরাস স্থানান্তরকে জুনোসিস বলা হয় এবং এর মধ্যে করোনাভাইরাস অন্যতম।

প্রাণীর মধ্যে অনেকগুলো করোনাভাইরাস থাকে এবং তাদের কোনো ক্ষতি করে না, তবে কখনো কখনো তা মারাত্মক স্ট্রেনে রূপান্তরিত হয়। করোনাভাইরাসের এই মারাত্মক রূপান্তরিত রূপ মানুষের সংস্পর্শে এলে তা হালকা থেকে মারাত্মক আকার ধারণ করে যা সর্দি থেকে মারাত্মক শ্বাসযন্ত্রের ব্যাধি এবং নিউমোনিয়া পর্যন্ত পৌঁছায়।

জেনে নিন করোনাভাইরাস সম্পর্কিত সব ধরনের প্রশ্নের উত্তর-

করোনাভাইরাস কী?

‘নোভেল করোনাভাইরাস’ নামটি করোনাভাইরাসের একটি আনডিটেক্টেবল স্ট্রেনকে দেওয়া হয়েছিল যা সম্প্রতি উহান (চীন) -এ পাওয়া গেছে। যেহেতু এই ভাইরাসটি এখনও সনাক্ত করা যায়নি, তাই এটির নামকরণ করা হয়েছিল COVID-19।

SARS-CoV কী?

SARS-CoV শব্দটির অর্থ সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিন্ড্রোম করোনাভাইরাস। এটিকে একটি মারাত্মক এবং সংক্রামক রোগ হিসেবে বলা হয় যা ২০০২ সালে চীন এবং বিশ্বব্যাপী মহামারির আকার ধারণ করেছিল। SARS-এর জন্য দায়ী করোনা ভাইরাসটি বাদুড় এবং সিভেট থেকে ছড়িয়ে পড়েছিল বলে জানা যায়।

COVID-19 এর SARS-CoV এর সাথে কতটা মিল?

২০০২ সালে ছড়িয়ে পড়া সার্স ভাইরাস (SARS-CoV) আর COVID-19 একই ভাইরাস নয়, তবে এটি দুটি ভাইরাস একই পরিবারের।

Uttor-5

করোনাভাইরাস কতটা বিপজ্জনক?

করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে হালকা থেকে গুরুতর লক্ষণ দেখা যায়। করোনাভাইরাসের হালকা লক্ষণগুলো সাধারণত ফ্লু জাতীয় যেমন – সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা এবং জ্বর। যখন লক্ষণগুলো তীব্র হয়ে ওঠে, তখন – শ্বাসকষ্ট, নিউমোনিয়া বা কোনো ব্যক্তির মৃত্যুও হতে পারে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কাদের বেশি?

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যাদের কম বা ডায়াবেটিস ও শ্বাসকষ্টজনিত ব্যাধিগুলির মতো সমস্যায় ভুগছে সেই ব্যক্তিদের মারাত্মক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

এটি কি প্রাণি উৎস থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হয়েছিল?

অতীতের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, SARS-CoV এবং MERS-CoV একটি প্রাণির উৎস থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হয়েছিল। ২০০২ সালে SARS-CoV মহামারির আকার ধারণ করে এবং এটি বাদুড় ও সিভেট থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রামিত হয়। অন্যদিকে, MERS-CoV আরবিয়ান উট থেকে মানুষের মধ্যে সঞ্চারিত হয়েছিল। COVID-19, গবেষকরা বিশ্বাস করেন যে, এই ভাইরাসটি চিনের বাজারে পাওয়া প্রাণিজ পণ্য বা সামুদ্রিক খাবার থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে। তবে এর অর্থ এই নয় যে, আপনি আপনার পোষা প্রাণি বা কোনো প্রাণি থেকে করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হতে পারেন। করোনাভাইরাসের আগের ঘটনাগুলো প্রাণিদের থেকে এসেছিল এবং COVID-19 প্রাণি থেকে ছড়িয়ে পড়েছিল বলে মনে করা হয়।

করোনাভাইরাস কি সংক্রামক?

হ্যাঁ, করোনাভাইরাস এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তির মধ্যে সংক্রামিত হয়। ভাইরাসটি সাধারণত কোনো ব্যক্তির শ্বাসযন্ত্রকে প্রভাবিত করে এবং প্রথমে হাঁচি ও কাশি জাতীয় সাধারণ ঠান্ডার লক্ষণ দেখা দেয়। যখন কোনো ব্যক্তি কোনো মাস্ক ছাড়াই হাঁচি বা কাশি দেয়, তখন ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে এবং কোনো সংক্রামিত ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগে বা সংক্রামিত বস্তুগুলিকে স্পর্শ করলে ভাইরাস এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তিতে ছড়িয়ে পড়ে।

Uttor-5

পোষা প্রাণীর কাছ থেকে কি এই ভাইরাস আসতে পারে?

গবেষকদের মতে, এখন অবধি কোনও প্রমাণ নেই যে করোনা ভাইরাসটি বিড়াল এবং কুকুরের মতো পোষা প্রাণীদের থেকে সংক্রামিত হয়েছে বা এই জাতীয় প্রাণী COVID-19-এ সংক্রামিত হয়েছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের বড় ঝুঁকিতে কারা আছে?

প্রাদুর্ভাবের পর থেকে যারা চীনে বসবাস করছেন বা ভ্রমণ করছেন তাদের সংক্রমণ হওয়ার ঝুঁকি বেশি। এছাড়াও, যাদের চীন থেকে আসা ভ্রমণকারীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে, যেমন – পরিবারের আত্মীয়, অফিস কলিগ, তারা করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিতে আছে।

মাস্ক পরলে কি করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে?

এই রোগের বিস্তারকে সীমাবদ্ধ করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দ্বারা মাস্ক পরার পরামর্শ দেওয়া হয়। যদিও এটি কিছু ক্ষেত্রে কার্যকর, তবে অন্যান্য প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা না নেওয়া পর্যন্ত পুরোপুরি ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধ করতে নিশ্চয়তা দেয় না। কিন্তু, মাস্ক পরা আপনাকে কাশি বা উন্মুক্তভাবে হাঁচি দেওয়া থেকে বিরত রাখবে এবং অন্যের সংক্রামিত তরল থেকে আপনার নাক বা মুখে প্রবেশ করতে বাধা দেবে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তি যদি মাস্ক ছাড়াই হাঁচি বা কাশি দেয় তবে কী হবে?

যখন কোনো সংক্রামিত ব্যক্তি মাস্ক ছাড়াই হাঁচি বা কাশি দেয়, তখন ভাইরাসটি চারদিকের বিভিন্ন বস্তুর মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। যখন দ্বিতীয় ব্যক্তি নিজের অজান্তে সেই বস্তুগুলো স্পর্শ করে এবং তার মুখ বা নাক স্পর্শ করে, তখন ভাইরাসটি সেই ব্যক্তিকে সংক্রামিত করে। পরের বার যখন দ্বিতীয় ব্যক্তি মুখোশ ছাড়াই হাঁচি দেয় তখন ভাইরাসটি বেরিয়ে আসে এবং তৃতীয় ব্যক্তিকে সংক্রামিত করে। এইভাবে, এটি ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তিতে সংক্রামিত হয়।

ভাইরাসটি বাইরে কতক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে?

বাইরে করোনাভাইরাস বেঁচে থাকার সঠিক সময় এখনও অজানা। তবে কিছু তথ্য থেকে জানা যায় যে, ভাইরাসটি বাইরে এসে কয়েক ঘণ্টা বেঁচে থাকতে পারে। সাধারণ জীবাণুনাশক দ্বারা সংক্রামিত জিনিসগুলো পরিষ্কার করলে দা সমস্ত ভাইরাসকে হত্যা করতে পারে।

Uttor-5

ফ্লু এবং COVID-19 উপসর্গগুলির মধ্যে পার্থক্য কীভাবে চিহ্নিত করবেন?

ফ্লু এবং COVID-19 উভয়ের লক্ষণগুলির মধ্যে আছে সর্দি, জ্বর, কাশি এবং হাঁচি যা দুই ভাইরাসকে নির্ণয় করতে খুব কঠিন করে তোলে। যাইহোক, নির্দিষ্ট ল্যাব পরীক্ষাগুলো শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি সনাক্ত করতে সহায়তা করে।

করোনা ভাইরাসের ইনকিউবেশন পিরিয়ড কত?

ইনকিউবেশন সময়টি ভাইরাস দ্বারা সংক্রামিত হওয়া এবং লক্ষণগুলোর উপস্থিতির মধ্যকার সময়কে বোঝায়। চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের মতে, COVID-19 এর ইনকিউবিশন সময়কাল ১৪ দিন। কোনো সংক্রামিত ব্যক্তি তার শরীরে লক্ষণগুলোর উপস্থিতির আগেই সংক্রমণটি সঞ্চারিত করতে পারে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে লক্ষণগুলোর বিকাশের পরে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে।

কেন করোনাভাইরাসের চিকিৎসার ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিকের পরামর্শ দেয়া হয় না?

অ্যান্টিবায়োটিকগুলো অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল ওষুধ যা মূলত ভাইরাস দ্বারা নয় ব্যাকটেরিয়ার কারণে সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়। যেহেতু করোনাভাইরাস সংক্রমণটি ভাইরাসজনিত কারণে হয়, তাই অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধগুলি এক্ষেত্রে ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়া হয় না।

কোন ধরনের ওষুধ COVID-19 এর চিকিৎসা বা প্রতিরোধ করতে পারে?

এখনও অবধি, করোনাভাইরাস সংক্রমণের সম্পূর্ণরূপে চিকিৎসা করার জন্য কোনো ওষুধ তৈরি হয়নি। তবে কিছু নির্দিষ্ট ওষুধ রয়েছে যা এর লক্ষণগুলো প্রতিরোধ করতে ব্যবহৃত হয়। COVID-19 প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হলো, ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা।

Uttor-5

COVID-19 এর জন্য ল্যাব টেস্টিং কখন করা হয়?

যদি কোনো ব্যক্তি ফ্লুর মতো লক্ষণগুলোঅনুভব করেন এবং সংক্রামিত অঞ্চলে বসবাস করেন, সংক্রামিত দেশগুলো থেকে আসা লোকজনের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল বা সংক্রামিত ব্যক্তির যত্ন নেয়ার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের মধ্যে থেকে থাকে তবে, তাকে COVID-19 এ পরীক্ষা করার পরামর্শ দেয়া হয়।

করোনাভাইরাসের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা কী কী?

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধ করার জন্য ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা অত্যন্ত জরুরি। কিছু প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা –
ক) অ্যালকোহলযুক্ত সাবান এবং পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিন।
খ) অসুস্থ ব্যক্তিদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ এড়িয়ে চলুন ।
গ) আপনার যদি COVID-19 ধরা পড়ে তবে বাড়িতেই থাকুন। আপনার পরিবারের সদস্য বা অন্য মানুষের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ এড়িয়ে ভাইরাসগুলোর বিস্তারকে এড়িয়ে চলুন। এছাড়াও, কাশি বা হাঁচির আগে প্রতিবার মুখটি ঢেকে রাখুন।
ঘ) নোংরা হাতে মুখ, চোখ বা নাক স্পর্শ করা এড়িয়ে চলুন।
ঙ) আপনার চারপাশের অঞ্চল পরিষ্কার করতে জীবাণুনাশক ব্যবহার করুন।

কোনো ব্যক্তির COVID-19 সনাক্ত করার পরে তার কী হবে?

COVID-19 সনাক্তকারী রোগীদের হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয় এবং যেসব স্বাস্থ্য কর্মীরা সেই রোগীদের যত্ন নেন তাদের মাস্ক এবং গ্লাভসের মতো প্রতিরক্ষামূলক জিনিস পরার পরামর্শ দেওয়া হয়।

যদি কোনো ব্যক্তির ফ্লুর লক্ষণ থাকে তবে কোনো আক্রান্ত দেশ পরিদর্শন না করে বা সংক্রামিত ব্যক্তির সংস্পর্শে না আসে তবে কী তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন?

না। যে সমস্ত ব্যক্তি ফ্লুতে ভুগছেন তবে তারা কোনো সংক্রামিত দেশ বা স্থান পরিদর্শন করেননি বা কোনো সংক্রামিত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসেননি তাদের করোনাভাইরাস দ্বারা সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা কম থাকে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮৫ বার

[hupso]