সর্বশেষ খবর :

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১২৩
সুস্থ
৩৩
মৃত্যু
১২

বিশ্বে

আক্রান্ত
১,৩২৩,৪৮১
সুস্থ
২৭৭,২৭৩
মৃত্যু
৭৩,৬০৩

» জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছ পদ্ধতি পরীক্ষার বিপক্ষে

প্রকাশিত: ১১. মার্চ. ২০২০ | বুধবার

জবি প্রতিনিধিঃ ইমরান হুসাইন।ভর্তি পরীক্ষার গুচ্ছ পদ্ধতির বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষক সমিতি।সোমবার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভায় গুচ্ছ পদ্ধতির বিরুদ্ধে অবস্থান নেন শিক্ষকরা। তবে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এখনই কিছু বলতে রাজি হননি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নূরে আলম আবদুল্লাহ।

অবশ্য গত মঙ্গলবার (১০মার্চ) সাধারণ সভায় উপস্থিত একাধিক শিক্ষক সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে শিক্ষক সমিতি সিদ্ধান্ত নিলেও এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিল চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন তারা।

সাধারণ সভায় গুচ্ছ পদ্ধতি নিয়ে সিদ্ধান্তের বিষয়ে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নূরে আলম আবদুল্লাহ বলেন, ‘গুচ্ছ পদ্ধতি নিয়ে সিদ্ধান্তের বিষয়ে আমি এখনই কিছু বলতে চাই না। আমি চাই আমার সহকর্মীরা আমার মাধ্যমেই বিষয়টি জানুক, অন্য কোনও মাধ্যমে নয়। (বুধবার) আনুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি জানাবো।’

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের দুই সদস্য বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তবে গুচ্ছ পরীক্ষার বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।’

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভার কোনও সিদ্ধান্ত কি কার্যনির্বাহী পরিবর্তন করতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সাধারণ সভার কোনও সিদ্ধান্ত কার্যনির্বাহীদের পরিবর্তন করার সুযোগ নেই।’

সাধারণ সভায় উপস্থিত থাকা অর্থনীতি বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. আইনুল হোসেন বলেন, ‘আমরা কাল শিক্ষক সমিতিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি গুচ্ছ পদ্ধতির পক্ষে না। যেহেতু অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছে থাকছে না, তাই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের থাকার বিষয়ে আমাদের মত নেই।’

সাবেক ডিন অধ্যাপক ড. শওকত জাহাঙ্গীর বলেন, ‘শিক্ষক সমিতি শুধু দাবি জানাতে পারে। এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলে সিদ্ধান্ত হবে। শিক্ষক সমিতিতে একটা সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় রাজি ছিলাম। গুচ্ছ পদ্ধতিতে বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো দুটো ভাগে ভাগ হয়ে গেলো, এতে মনে হচ্ছে যারা আসেননি, তারা এ ক্যাটাগরির, বাকিরা বি ক্যাটাগরির। এতে অভিভাবক-শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘব হবে না, সবাই না আসায় আমরা সফল হতে পারছি না। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা একাডেমিক কাউন্সিলের।’

শিক্ষক সমিতি কি সিদ্ধান্ত নিলেই জবি গুচ্ছ পরীক্ষা থেকে বেরিয়ে আসবে, এমন প্রশ্নের জবাবে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নূরে আলম আবদুল্লাহ বলেন, ‘শিক্ষক সমিতি বার্গিনিং বডি। শিক্ষক সমিতি আলোচনা করতে পারে, শিক্ষকরা কি চাই, না চাই। আমরা এ বিষয়টি উপস্থাপন করবো। বাকিটা একাডেমিক কাউন্সিলে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান তিনি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৭ বার

[hupso]