সর্বশেষ খবর :

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১২৩
সুস্থ
৩৩
মৃত্যু
১২

বিশ্বে

আক্রান্ত
১,৩১৮,৩০৬
সুস্থ
২৭৬,১৮৯
মৃত্যু
৭২,৭৬৯

» নড়াইলে এক মামলায় খালেদা জিয়াকে সকালে জামিন দিলেও দুপুরে প্রত্যাহার

প্রকাশিত: ১৩. মার্চ. ২০২০ | শুক্রবার

মানহানির অভিযোগে নড়াইলে করা এক মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সকালে স্থায়ী জামিন দিলেও দুপুরে পর তা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন হাইকোর্ট। এই জামিন বিষয়ে পুনরায় চূড়ান্ত রুল শুনানির জন্য অবকাশের এক সপ্তাহ পর নির্ধারণ করেছেন আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি এ এস এম আব্দুল মোবিনের  সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সামিরা তারান্নুম রাবেয়া ও খালেদার পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট কামারুজ্জামান।

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সামিরা তারান্নুম বলেন, আদালত প্রথমে খালেদা জিয়াকে স্থায়ী জামিন দিয়েছিলেন।তখন আমরা উপস্থিত ছিলাম না। পরে আমরা আদালতকে বলি, এই মামলায় খালেদা জিয়া ২০২১ সালের জানুয়ারি মাস জামিনে আছেন। রাষ্ট্রপক্ষের কাছে এই মামলার নথি নেই। আমরা রুল শুনানি করতে চাই।

তখন আদালত আমাদের আবেদন মঞ্জুর করে আদেশ প্রত্যাহার করে পুনরায় রুল শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।অবকাশকালীন ছুটির শেষ হলে তার এক পর রুল শুনানি হবে।

২০১৮  সালের ১৩ আগস্ট তাকে এ মামলায় অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের একটি সমাবেশে খালেদা জিয়া প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বির্তক আছে বলে মন্তব্য করেন।

এছাড়া একই সমাবেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম উল্লেখ না করে তাকে (বঙ্গবন্ধু) ইঙ্গিত করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘তিনি স্বাধীনতা চাননি। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ চাননি।’

মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে মন্তব্য করায় মানহানির অভিযোগে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ২৪ ডিসেম্বর নড়াইল সদর আমলি আদালতে মামলাটি করেন জেলার নড়াগাতী থানার চাপাইল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান রায়হান ফারুকী ইমাম।

পরে ২০১৮ সালের ৫ আগস্ট এ মামলায় নড়াইলের আদালতে খালেদা জিয়ার জামিন নামঞ্জুর হয়। এরপর ওই মামলায় জামিন চেয়ে খালেদা জিয়া একই বছরের ৯ আগস্ট হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়ে কারাবন্দী রয়েছেন খালেদা জিয়া।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৬ বার

[hupso]