সর্বশেষ খবর :
মুজিববর্ষ

» শার্শার উলাশীতে স্ত্রীর পরকীয়ায় বলীতে জীবন দিতে হলো বিদেশ ফেরত স্বামী সামছুর

প্রকাশিত: ২৭. নভেম্বর. ২০১৯ | বুধবার

বেত্রাবতী ডেস্ক।। যশোরের শার্শার উলাশীতে স্ত্রীর পরকীয়ায় বলী হয়ে জীবন হারালেন বিদেশ ফেরত স্বামী সামছুর সরদার (৫০)।সামছুর উপজেলার উলাশী গ্রামের সরদার পাড়ার আরশাদ সরদারের বড় ছেলে এবং ১পুত্র ও ১মেয়ের জনক।

সরেজমিন গেলে পরিবার এলাকাবাসী জানান, সামছুর মালয়েশিয়া প্রবাসী।বিদেশ থাকাকালীন সময়ে সামছুর জানতে পারে স্ত্রী পারুল ঐ এলাকার কূখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী রুবেলের সাথে পরকীয়ায়য় জড়িয়ে পড়ে।বিষয়টি সামছুরের পরিবার রুবেল ও পারুল কে নিষেধ করলে রুবেল সহ তার সাঙ্গ পাঙ্গরা বেশ কয়েক বার হুমকি ধামকি দেয়। ।ফলে তারা আর বিষয়টি কাউকে জানতে সাহস পায়নি।

এখবর জানতে পেরে ৭ বছর প্রবাসে জীবন কাটিয়ে সামছুর গত ১৫ দিন আগে বাড়ি ফিরে আসে এবং বিষয়টি জানা বোঝা শুরু করে।ফলে স্ত্রী পারুল ও তার কথিত প্রেমিক রুবেল সামছুর কে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করে।এদিকে বাড়িতে আসার দুদিন পর সামছুর শারীরিক অসুস্থতা হয়ে পড়লে ডাক্তারের চিকিৎসা নিতে নাভারন বেসরকারি ক্লিনিকে এক ডাক্তারকে দেখান এবং প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ঔষধ সেবনের পরামর্শ নেন।ডাক্তারের ঔষধ তালিকায় একটি Piriton নামে কাশীর সিরাপ থাকে এবং সেই সিরাপ প্রথম ডোজ সেবন করার পর কোন উপকার হয়নি।ফলে এ সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে ফেলে স্ত্রী পারুল ও কথিত প্রেমিক রুবেল।

যার কারনে স্বামী সামছুর কে দ্বিতীয় বার জোর করে ঔষধ সেবন করায়।খাওয়ার সময় ঔষধ তিতে লাগলে আর না খেয়ে বোতলটি ছুড়ে ফেলে দেয়।আর এতেই বিষয়টি পরিস্কার হয়ে বিষের রহস্যটি।ঔষধটি যে স্হানে পড়ে সেস্হানটি পুড়ে যায়।এদিকে সামছুর ঔষধ সেবন করার সাথে সাথে বমি ও পেটে জ্বালাপোড়া শুরু হয়।

তখন সামছুরের ছেলে তার বাবাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ডাক্তার পরিক্ষা নিরীক্ষা করলে সামছুর বিষক্রিয়ার কারনে অসুস্থ হয়ে পড়েছে ও তার অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায়তাকে খুলনা মেডিকেলে রিপার্ট করার পরামর্শ দেন।সামছুর ১২ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে আজ (বুধবার)সকালে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

কিন্তু,সিরাপের ভিতর বিষ গেলো কিভাবে?এই উত্তর খুজতে গেলে পাওয়া যায় এই হত্যার আসল রহস্য।

এ বিষয়ে সামছুরের পিতা আরশাদ আলী অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলের বউ পারুল ও তার প্রেমিক রুবেল মিলে কৌশলে আমার ছেলেকে বিষপান করিয়ে হত্যা করেছে। রুবেলের অব্যাহত হুমকির কারনে আমরা  পরকীয়ার বিষয়টি জেনেও প্রতিবাদ করতে সাহস পায়নি।

এ বিষয়ে সামছুরের মা শাহিদা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলের কাশীর সিরাপের ভিতরে কৌশলে আমার ছেলের বউ পারুল ঘাস মারা বিষ রেখে দেয়। তার প্রেমিক রুবেল এই পরামর্শ দেয়।তারা দুজনে ষড়যন্ত্র করে আমার ছেলে সামছুরকে মেরে ফেলেছে। আমরা তার অবৈধ সম্পর্কের কথা জেনেও ভয়ে কিছুই করতে পারেনি। কারন রুবেল অনেক ক্ষমতাধর আমাদের ক্ষতি হবে জেনেও ভয়ে নিরব ছিলাম।

সামছুরের এক মাত্র কন্যা তিন্নি অভিযোগ করে বলেন, আমার মা’কে ঐ গুন্ডা রুবেল শিখিয়ে দিয়েছিল যে,  কিভাবে আমার পিতাকে মেরে ফেলা যায়।সেই কথা শুনে মা বিষ সিরাপের সাথে মিশিয়ে বাবাকে সেবন করিয়ে মেরে ফেললো।আমার বাবা হত্যার বিচার চাই।

এবিষয়ে অভিযুক্ত সামছুরের স্ত্রী পারুলকে অনেক খোজাখুজি করেই সন্ধান পাওয়া যায়নি।সম্ভবত পারুল গা-ঢাকা দিয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

এবিষয়ে অভিযুক্ত পারুলের প্রেমিক কুখ্যাত মাদক’ব্যবসায়ী মির্জাপুর গ্রামের রুবেল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার সাথে পারুলের আগে সম্পর্ক ছিলো সে তো সবাই জানে। কিন্তু,এখন কোনো সম্পর্ক নেই।

এ বিষয়ে শার্শা থানার এসআই আবুল হাসান জানান,ঘটনা শুনে ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে এ ঘটনায় খুলনা সোনাডাঙ্গা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।লাশের ময়না তদন্তের রিপোর্ট ও আলামতের ভিসেরা রিপোর্ট পাওয়া গেলে পরিবারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তিনি আরো জানান,ঘটনাস্থলে ও পরিবারের সাথে খোজ নিয়ে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, বিষ প্রয়োগ করে যে সামছুর কে স্ত্রী পারুল বিষ খাওয়ায়ে হত্যা করেছে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮৪৫ বার

[hupso]