» সিলেটের তিন তরুণের ইউরোপের চোখ ধাঁধানো জীবনের স্বপ্ন চির বিদায় নিল ট্রলারডুবিতে

প্রকাশিত: ০১. ফেব্রুয়ারি. ২০২০ | শনিবার

সিলেটের তিন তরুণের ইউরোপের চোখ ধাঁধানো জীবনের স্বপ্ন দেখিয়ে বাংলাদেশিদের জড়ো করা হচ্ছে ইরানে। জাহাজে বা হাঁটিয়ে ইউরোপ পৌঁছে দেওয়া হবে; দালালদের এই প্রলো’ভনে পা দিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ছাতকের মিজানুর রহমান। সোমবার বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে তার পরিবারকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

মিজানুর রহমান স্থানীয় পাইগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসাবে কর্মরত ছিলেন। একই উপজেলার জালালীচর গ্রামের আব্দুর নুর নামের ইরান প্রবাসী এক দালালদের লো’ভ’নীয় প্রস্তাবের ফাঁ’দে পা দিয়ে শিক্ষকতা পেশার ইস্তফা দিয়ে তিনি গত ১৪ ডিসেম্বর ভ্রমণ ভিসায় পাড়ি জমান ইরানে।

সেখানে প্রায় ১২দিন পার করে তুরস্ক সীমান্তের একটি হ্রদে ট্রলারডুবিতে তার মৃ’ত্যু হয়। এ হ্রদটি ইরান সীমান্তের কাছে অবস্থিত। সেখান থেকে অভিবাসীরা প্রায়ই ইউরোপে যাওয়ার জন্য তুরস্কে প্রবেশ করেন।

এই দুর্ঘটনার পর ৬৪ জনকে উ’দ্ধার করে কাছের হাসপাতাল ও আশ্র’য়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। ২৬ ডিসেম্বর গ্রিনিচ মান সময় রাত ১২টায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। হ্রদটি পুরোপুরি তুরস্কের ভেতরে অবস্থিত। নৌকাটি হ্রদের উত্তর তীরে যাওয়ার সময় ডুবে যায়। এতে আরো পাঁচজন ঘটনাস্থলে এবং দুজন হাসপাতালে মা’রা যান।

একই ট্রলারে দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের চেচান গ্রামের মৃত হাজী জমসিদ আলী তালুকদারের ছেলে আলাল মিয়া তালুকদারের (৩৬) মৃ’ত্যু হয়।

আলাল মিয়ার বড় ভাই কিরন মিয়া তালুকদার জানান, আলাল মিয়া ১২ বছর ধরে ওমানে অবস্থান করছিলেন। ওমান থেকে ইরাক ও তুরস্ক হয়ে একই নৌকায় ইউরোপে যাওয়ার পথে ট্রলারডুবির ঘটনায় আলাল মিয়াও মারা যান।

এদিকে, গত ২২ ডিসেম্বর জাউয়া বাজার ইউনিয়নের মোঘলগাঁও গ্রামের মৃত আরশ আলীর ছেলে আব্দুল মালেক (৩২) মরক্কো থেকে স্পিডবোটে করে সাগর পথে স্পেন যাওয়ার সময় নিহত হয়েছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে মরক্কো থেকে স্পিডবোটে স্পেনে যাওয়ার কথা ছিল তার। গত ৮ মাস আগে আব্দুল মালেক ইউরোপ যাওয়ার জন্য ঢাকা থেকে বিমান যোগে আলজেরিয়া যান। পরে আলজেরিয়া থেকে সড়ক পথে মরক্কো গিয়ে অবস্থান নেন।

মালেকের সহযাত্রী সিংচাপইড় ইউনিয়নের কামারগাঁও গ্রামের আবুল হাসনাত তার পরিবারকে মুঠোফোনে জানান, গত ১৬ ডিসেম্বর সাগর পথে স্পেন পৌঁছানোর পূর্বে একই স্পিডবোটে মরক্কো থেকে স্পেনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছিলেন।

ভূমধ্যসাগরের সাগরের উত্তাল ঢেউয়ে একপর্যায়ে নিজের ভারসাম্য হারিয়ে পানিতে পড়ে যান। এরপর থেকে আব্দুল মালেককে খোঁ’জে পাওয়া যায়নি।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় ছাতক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তফা কামালের সঙ্গে। তিনি জানান, এই বিষয়ে নিয়ে কেউ কোনো ধরনের অ’ভিযোগ করেননি। তবে তারা খোঁ’জ নিয়ে দেখবেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৯০ বার

[hupso]